বন্যার ছড়া

প্রদীপ মার্সেল রোজারিও   ফোঁসছে নদী উপছে পানি বাড়ছে কষ্ট দুঃখ-গ্লানি, ভাসছে স্বপ্ন ভাসছে বাড়ি ভাঙ্গছে নদী ছিড়ছে নাড়ি। ডুবছে

Read more

বাদল বিরহ

গল্প সুমন কোড়াইয়া বৃষ্টির শব্দে ঘুম ভেঙ্গে যায় মুক্তার। বিছানা ছেড়ে বারান্দায় যায় সে। সকাল বেলার এরকম বৃষ্টির সময় শুধু

Read more

জ্ঞান সাধন

ওসমান্ড রড্রিগ্স্: মানুষ জন্ম লগ্ন হতেই শিক্ষা লাভ করতে থাকে এবং তার মগজে জ্ঞান অর্জিত হতে থাকে। যার আই. কিউ ভাল সে তাড়াতাড়ি শেখে এবং বুঝে এবং যার মগজ গঠন শক্ত নয় তার সবকিছুই দেরীতে হয় এবং এমন কিছু আছে যা তার মাথায় ধরেই না। তাই মানুষ কেউ চালাক ও কেউ বোকা (সরল)। তাই পড়াশুনা করতে কেহ পড়ে সায়েন্স আর কেহ নেয় অনারস্। কেহ হয় কামার, কুমার, জেলে আর কেহ হয় অফিসার, শিক্ষক,বিজ্ঞানী বা আইনজ্ঞ। মেধা অনুযায়ী বিষয় পড়াশুনা বা কাজ শেখা প্রয়োজন। যিনি স্বর্ণের কাজ করেন তিনি হালচাষ বা মাটির কাজ কাটা করতে পারবেন না। যিনি শিক্ষক তিনি বাস চালাতে বা কাপড় শেলাতে পারবেন না। পারলেও ভাল হবে না বা কঠিন ঠ্যাকায় না পারলে তিনি তা করবেন না। সব বিদ্যা সবার সাজে না। সাপ্তাহিক প্রতিবেশীতে বিদ্যা, শিক্ষা ইত্যদি নিয়ে আমার অনেক লেখা ছাপা হয়েছে। তারপরও বলেছিলাম শিক্ষা নিয়ে আরো লিখবো। ছোট বেলায় যখন স্কুলে (বেবী ক্লাশে) যেতাম তখন থাকতো একটা স্লেট ও একটা পেন্সিল মাত্র (কাঠ পেন্সিল নয়)। আর বর্তমানে সেখানে বাচ্চা ভার বইতে পারে না এমনই বই খাতা তাকে বহন করে নিতে যেতে হয় স্কুলে। ঠিক আছে, কেন না লেখা পড়া আর আগের মত নেই। বর্তমানে অত্যাধুনীক লেখাপড়া। আমরা ক্লাশ থ্রিতে যা পড়া শিখতাম তা বর্তমানে ক্লাশ ওয়ানেই শেখানো হয়। তখনকার দিনে কেহবা ছয়/সাত বছরে ক্লাশ ওয়ানে পড়তো। আর বর্তমানে সাড়ে তিন বছর হতে না হতেই মা/বাবা স্কুলে ভর্তি করানোর জন্যে পাগল হয়ে যায়। ভাবতে হবে ওর শেখার বয়েস হয়েছে কি-না বা ক্লাশ ওয়ানে ওর কঠিন পড়া মাথায় ঢুকবে কি-না। আদর স্নেহ ইত্যাদির অভাবে বা স্বস্তিতে লেখা পড়ার সুযোগের অভাবে (চাপে) ওর প্রতিভা কোনও না কোনওভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এসমস্ত কারণে ভবিষৎএ যা ফল দাঁড়াবার কথা কখনো বা সে তার ধারে কাছেও থাকে না। চাকুরীতে ঢোকার আগেই কোথায় ঘুষ খাওয়া যাবে এমনি পরিকল্পনা করতে থাকে। তখন তার মেধা বা গুণাগুণ চলে ভিন্ন খাতে বা ধরাকে সরা জ্ঞান করে। বর্তমানে অভিনব পদ্ধতিতে স্কুলে পড়াশুনা করানো হয়। খ্রীষ্টান মিশনারী এবং গুটি কতক স্কুলে সঠিক নিয়েমে ছাত্রদের পড়ানো হয় এবং বাকীগুলো শুধু গতকালের দেয়া বাড়ীর কাজ নেয়া ও নতুন বাড়ীর কাজ দেয়া কিন্তু পড়ায় না। পড়ায় না তা ঠিক নয়, তবে সেটা সেই একই শিক্ষকই বাসায় এসে মোটা অংকের টিউশন ফী নিয়ে পড়ায়। তাহলে পড়াশুনা হয় বাসায় অথবা কোচিং সেন্টারে। স্কুল আছে শুধু হাজিরা, অনুপস্থিত হিসাব, বেতন নেয়া, ভর্তি বানিজ্য, পরিক্ষা নেয়া, সার্টিফিকেট ও টি.সি. দেয়া ইত্যাদি করার জন্যেই। আমার মতে কোচিং সেন্টারই আসল পড়াশুনা হয়, স্কুলে নয়।বিদ্যঅর্জন স্কুল থেকে উঠেই যাচ্ছে। আমার দাদা ১৯২৬

Read more

সাওঁতালদের বর্ণমালা বিষয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের মতামত রাষ্ট্র কর্তৃক স্বীকৃতি হোক

মার্শাল টুডু: ভাষা একেকটি জাতির স্বতন্ত্র পরিচয় বহন করে ,যা একটি জাতির সমাজ-সংস্কৃতি ও জীবনাচরণকে তুলে ধরে। আর সেই ভাষা

Read more

কবি মতেন্দ্র মানখিনের সাক্ষাৎকার: আমরা থেমে নেই, এগিয়ে যাচ্ছি

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সুমন সাংমা তাঁর মাধ্যমে বাংলাদেশের গারো সাহিত্যাঙ্গণ অনেক বেশি সমৃদ্ধ হয়েছে। ছোট গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ, ছড়া, গান, সাহিত্য

Read more

মা

খোকন কোড়ায়া নবজীবন হাসপাতালের একটি কেবিনের অতিরিক্ত বেডে শুয়ে আছি আমি। পাশের বেডে আমার মা। পনের বছর যাবত মা ক্যান্সারে

Read more

অনামিকা

প্রদীপ মার্সেল রোজারিও আমি অনামিকার সামনে দাঁড়িয়ে আছি। পনের বছরে তেমন একটা পরিবর্তন আসেনি ও’র। মুখের উজ্জ্বলতা, পরিপাটি চুল, কাজল

Read more