মিনু কোড়াইয়া- বৃষ্টিরানী’র কবিতা

মৌনতা
=========
এইক্ষণে, আমি একাকী মনে
মেনেছি মৌনতা ব্রত;
সকলেরে আজ নমি শিরে
নিজেরেই রেখেছি নত।।

ক্রুদ্ধ আকাশে পেতেছি কান
শুনেছি মেঘের গর্জন
ক্ষোভের আগুনে পুড়লো সবই
যা কিছু করেছি অর্জন ।।

শূন্যতা শুধু রয়ে গেল সাথে
তাই নিয়ে যাই ফিরে ;
যা ছিল মনের সুপ্ত বাসনা
ভুলে যাবো ধীরে ধীরে ।

ধূলিমাখা ঐ সুখের বসনে
শুনেছি পথিকের রব ;
সাজ ঘরে তাই রেখে গেলাম আজ
সকল মহিমা বৈভব ।।

২৭ জুলাই, ২০১৮
তেজগাঁও, ঢাকা, বাংলাদেশ।।

 

আমার কিছু দুঃখ ছিল!
তার ক্ষীণভাগ তোমায় দিতে চেয়ে
ফিরে গেছি বারবার ;
কিছু কষ্টের গানও ছিল
শোনার সময়ও হয়নি একবার;
বললে,
এখন তোমার ঘর জুড়ে
কবিতার আবদার !!

অনেক কথার গল্পও ছিল
বসেছিলাম সাঁঝের আশায়;
কালো মেঘ করে বৃষ্টি নামে
তোমার আসার পথ জলে ডুবে যায় ।।

বুকের ডানপাশটির ব্যথা বাড়ছে প্রতিদিন
নিঃশ্বাস ভারি হতে থাকে-
একবারও বলা হলোনা তার খবর;
দিন গুনি-
কবে তোমার মিলবে অবসর ;
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
দিনদিন নিজ হাতেই
তাকে দিয়ে যাই কবর ।।

২৩ জুলাই, ২০১৮
ঢাকা, বাংলাদেশে।

 

পরহিতব্রত (চতুর্দশপদী)
========
সুগন্ধ ছড়ায়ে ফুল, আপনি বিলায়
ভুবন মোহিনী রূপ, না সম্ভোগে নিজে
কুড়িদের কানে কানে, মক্ষিকারা গায়
বিলায়ে পরম সুখ, আপনারে ত্যাজে ;
ক্ষণকালে হেসে চাঁদ, আঁধারে শুধায়
তোমার আধারে তবু, প্রদীপ বিরাজে
ভেসে রই অন্তরীক্ষে, বহু মহিমায়
আছে ব্যাথা কলঙ্কের, তবু সুখ বাজে ;

পথ চলে এঁকেবেঁকে, গিরিতট ভেদে
শতঘাত লাগে দেহে, সহে বুক পেতে
অবিরাম জেগে থাকে, সদা স্থির ক্লেদে
পথ হয় প্রসারিত, পথ যেতে যেতে ;
ক্ষনকাল চিত্ত যেনো, নাহি মরে কেঁদে
সারকথা হোক ব্রত, “ বাঁচি পরহিতে” ।।

মিনু কোড়াইয়া (বৃষ্টিরানী)
২২ জুলাই, ২০১৮
ঢাকা, বাংলাদেশ।

 

সূর্য-মেঘের আলাপন
============
একমুঠো বৃষ্টির আশায় উন্মুখ দুই চোখ
একসময় মুখ ফিরিয়ে নেয় আকাশ থেকে
অধীর আগ্রহে সবুজ বৃক্ষের শিকড়ে শিকড়ে
মাটি চষে খুঁজে বেড়ায় তৃষ্ণা মেটানোর স্বাদ ;
মৃত্যুর প্রলেপ মেখে শুকনো পাতা ঝরে পরে
ফুলের কুঁড়িতে কুঁড়িতে বিষন্নতার ছাপ স্পষ্ট
মাটির উপর জুড়ে কেবল জীবনের হাহাকার
কখন বর্ষা এসে, ঘুচাবে জীবনের ক্লান্তি-অবসাদ ।।

উঠোন জুড়ে তোলপাড় ঝড়ো বাতাসের শব্দ
প্রখর রৌদ্রে গান ভুলে নিশ্চুপ হয় বিহঙ্গ
ভেজা মাটির গন্ধ পেতে ব্যাকুল বনানী
তীব্র গন্ধ বাতাসে, শুকিয়ে যায় নদীর নির্যাস;
এখনও মাঝি হাল ধরে নদীর কিনারায়
কখন বর্ষা এসে ভেজাবে ঘাসফুল, উপবন
ভাসবে মোহনা, ফেলবে শান্তির নিঃশ্বাস ।।

পশ্চিম আকাশে আলো নেমে আসে ধীরে
সূর্য়মুখির প্রস্ফুটিত রূপও হয় অস্তগামী
ধূলো উড়িয়ে ঘরে ফেরার পালা রাখালের
ছায়াবৃক্ষে আশ্রয় নেয় ভ্রুাম্য পথিকের মন;
পরিচ্ছন্ন আকাশ জুড়ে, আলোয় ঝলমল
কোথায় এতটুকুও নেই মেঘের ইঙ্গিত
মনে মনে মেঘে হেলান দেয় ঘুমন্ত চোখ
স্বপ্নে জাগরণ ঘটে, দেখে বর্ষার আগমন।।

দুইচোখ জুড়ে নামে বৃষ্টি, জলে থই থই
নিভে রৌদ্রের দাবালন মেঘের দাপটে
উঠুনে খেলা করে ডুবুরি পানকৌড়ি
জলের ঝাপটায় নেচে ওঠে সবুজ বন;
বৃক্ষের শিকড়ে জমে উঠে তৃষ্ণার জল
ক্লান্ত পথিক খুঁজে পায় সুনিবিড় আশ্রয়
দুই চোখ মেলে আকাশ দেখি গূঢ় আশ্বাসে
শুরু হয় সূর্যের সাথে বৃষ্টির আলাপন।।

১৬ জুলাই, ২০১৮
গ্রীন রোড, ঢাকা, বাংলাদেশ

আমার শহর

=====

এই শহর আমার নয়!!!

এখানে খাঁখাঁ রোদ্দুর, না থাকুক বৃষ্টির জল

এখানে নেই ঘনবসতির অস্থির কোলাহল;

 

এই শহর আমার নয়!!!

এখানে সকলেই সরব কর্মময় যজ্ঞে

ব্যস্ততার সাথে চলে গভীর মাখামাখি;

এখানে প্রাণের সাথে গড়ে প্রাণের হৃদ্যতা

না থাকুক ভোরে কাক কোকিলের ডাকাডাকি ।।

 

এই শহর আমার নয়!!!

এখানে সময়ের হাত ধরে ছোটে সকলে

নেই কারো অবসর

কেউ কারো পানে দেখে না ফিরে;

এখানে বড় বড় অট্টালিকা শূন্য প্রাসাদ

নেই ঘামে ভেজা শরীরের বিকট গন্ধ

তবুও সকলেই চেনা, সকল অচেনার ভীড়ে ।।

 

এই শহর আমার নয়!!

এখানে  মেহনত করে বাঁচে মানুষ রাতদিন

নেই এখানে কুলী মজুর গরীরের হাহাকার;

শত প্রচেষ্টার গভীরে

সকলেই সয়ংচল, নেই অলসতার ভার।।

 

এই শহর আমার নয়!!

এখানে ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক যায়না শোনা;

এখানে নেই হিংস্রতা, নেই শকুনের আনাগোনা ।

পিচঢালা পথে বাজে পাথরের গুঞ্জন;

এখানে স্বপ্ন যেনো বুলায়  দুচোখে অঞ্জন।।

 

এই শহর আমার নয়!!!

এখানে শান্তির পায়রা ওড়ে আকাশ জুড়ে

এখানে স্বর্ণখচিত পাহাড় হাসে সুদূরে।।

এখানে টলমল নদীর বুকে ভেসে চলে তরণি

এখানে স্বচ্ছ সরোবরে সিক্ত হয় রমণী ।।

 

এই শহর আমার নয়!!!

এখানে পরম নির্ভরতায় বুকের নিঃশ্বাস বহে বিশুদ্ধ

এখানে বিশাক্ত বায়ু দেহ করেনা দগ্ধ ।।

এখানে নেই যৌনতার লোলুপ দুষ্টি

এখানে নেই আতঙ্ক, নেই  অনাসৃষ্টি।।

 

এই শহর আমার নয়!!

এখানে ভেসে আসে আযানের সুমধুর ধ্বনি

পবিত্রতার স্পর্শ জাগে মননে;

মন্দিরে জ্বলে ধূপারতি,

দেবতার নামে সংগীতে ও ভজনে।।

এখানে নেই রেশারেশি নেই বিভেদের বেড়াজ্বাল

বলেনা কেউ অর্থহীন কথা, ওড়েনা জঞ্জাল।

 

এই শহর  আমার নয়!!

এখানে রাষ্ট্রনেতার ভীষণ দরদী মন

এখানে বৃক্ষের মত ছায়া দেয় সুশাসন ।।

এখানে পরম নির্ভরতায় বাঁচে মানুষের জীবন

এখানে সকলেই যেনো সকলের আত্মিয়-আপন।।

 

এই শহর আমার নয়!!!!

কিন্তু আমিও চাই –

আমার শহরটি হোক পরিপাটি  সুনির্মল

আমার শহরে বয়ে  যাক সুবাতাস, থাকুক পরিমল ।।

আমার শহরের বুকে নির্ভরতায় ফেলি নিঃশ্বাস;

সকলের মাঝেই থাকুক প্রেম প্রীতি,

থাকুক গভীর বিশ্বাস!!!

 

এই শহর আমার স্বপ্ন

হোক এই শহরে ই আমার অবস্থান;

থাকুক সতেজ বৃক্ষরাজি যত

সুখানোভবে বাঁচুক সকল প্রাণ ।।

 

১৫ জুন ২০১৮

কোয়ালা লামপুর, মালয়েশিয়া।।