তুলির আঁচরে উত্তম মেষপালক

ডেভিড প্রনব দাশ:

সেদিন হঠাৎ পরিচয় হলো একজন যুবকের সাথেযার নাম  এডওয়ার্ড ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা থেকে সদ্য অনার্স নিয়ে পাশ করে বেরিয়েছেন তিনি মাসের শেষে তিনি চলেছেন রাশিয়ান সরকারের একটা বৃত্তি নিয়ে উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণের জন্যে, শিক্ষাকাল বছর বললেন যাবার আগে একটা ছোট্ট প্রদর্শনী করবেন তার আঁকা ছবি নিয়ে শুনে শুধুমাত্র আনন্দিত হলাম তা নয় বিস্মিতও হলাম আমাদের খৃষ্টান সমাজে মাত্র জন শিল্পীকে পেলাম যাঁরা চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে পাঠ গ্রহণ করেছেন এবং শিল্প প্রদর্শনে এগিয়ে এসেছেন প্রথমজন হলেনসেন্টটমাস চার্চের নিখিলচন্দ্র হালদার (যিনি ইতিমধ্যেই প্রভুর রাজ্যে চলে গেছেন) আর দ্বিতীয় জন হলেন এডওয়ার্ড তাঁর চিত্র কর্মের নির্দশন আমাকে দেখালেন যার শিরোনাম তিনি দিয়েছেন গুড শেফার্ড”-একজন উত্তম মেষপালক ছবিগুলো দেখতে দেখতে নানা প্রশ্ন এলো মনে রঙ ব্যবহারে দেখলাম আলট্রা মেরুনএর আধিক্য উত্তরে তিনি বললেন যে এই আলট্রা মেরুন মনে শান্তির  বিস্তার ঘটায় তাই তিনি এই রঙ বেশি ব্যবহার করেছেন

তাঁর কথায় জানলাম যে, এই মেরুন রঙটি প্রয়োগের পর একটা অসাধারণনীল রঙের টেকচার তৈরি হয় এই রঙের সৃষ্টি হলো-“লাপিস লাজুলিপাথর থেকে এটি অত্যন্ত মুল্যবান রঙ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে ছবিগুলো দেখতে দেখতে জানলাম তার আঁকার প্রিয় মাধ্যম হলোওয়াটার কালার ছাড়াও তিনি ব্যবহার করেন ওয়েল কালারএটি তিনি ব্যবহার করে থাকেনরিয়ালিস্টিকছবি আকাঁর জন্যে তাঁর আঁকার সবগুলো ছবির থেকে কয়েকটা ছবি আমার কাছে উল্লেখযোগ্য বলে মনে হয়েছে কারণ আর কিছু নয়শুধু এগুলো দেখে আমার মনে গুঞ্জরিত হয়েছে কটি গান আর কবিতার কিছু অংশ অর্থাৎ আমি ছবিগুলোর সাথে কিছু কবিতা আর গান রিলেট করতে পারছি যেমনএকটি ছবিতে আঁকা দেখলাম যীশু দাঁড়িয়ে আছেনআকাশের পটভূমিকায় এক দূর্ভেদ্য দেওয়ালের পাশে এই দেওয়াল টা হলো গাছের সারির এ্যাবস্ট্রাকট ফরম যথারীতি যীশুর পিছনে মেষের দল তিনি যেন  বলে চলেছেন-“তোমরা যারা পরিশ্রান্ত, আমার কাছে এসো, আমি তোমাদের বিরাম দেব ছবিটিতে যেন এক নান্দনিকতার আভাষ স্পষ্ট হয়ে উঠতে চাইছে আর একটা ছবি হলো যীশুর ক্রুশে বিদ্ধ রক্তের বিন্দুতে পেরেকবিদ্ধ পা দুখানি.

রক্ত ঝরিছে অঙ্গেঁ, তোমার রক্ত ঝরিছে

অঙ্গেঁ শুধু আমার পাপের জন্যে

শরীরের সব রক্ত ঝরিয়ে

আমারে করেছে জয়…….

গানের কথা গুলিরই প্রতিচ্ছবি যেন আঁকা ছবিতে অনুরনিত হয়েছে আর একটা ছবির কথাবলি যীশু চলেছেন পাহাড়ী পথ বেয়ে, কাঁধে রয়েছে এক মেষশিশু এবং পিছনে রয়েছে মেষের পাল আর সামনে দেখা যাচ্ছে কয়েকটা কালো রঙের নেকড়েযেন এখনি আক্রমন করবে যীশু প্রথমে দাঁড়িয়েছেন দৃঢ়তা নিয়ে এবার প্রতিরোধের সংগ্রাম শুরু হবে এই নেকড়েগুলো তো শয়তানের প্রতিবিম্ব মানুষকে পাপ থেকে মুক্তি দিতেই তো তিনি সংগ্রামী মুক্তিযোদ্ধা এর সমার্থক কবিতার কয়েকটা লাইন আমার মনে প্রতিফলিত হচ্ছে কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কবিতা লিখেছিলেন বড়দিন স্মরণ করে

নাগিনীরা চারিদিকে ফেলিতেছে

বিশাক্ত নিঃশ্বাস

শান্তির লোলিত বাণী শুনাইবে

ব্যর্থ পরিহাস……….

শব্দ বেঁধে দেওয়া এই আলোচনা এখানেই শেষ করছি ঈশ্বর প্রভুর কাছে প্রার্থনা করছি শিল্পী এডওয়ার্ডের সফল কর্ম জীবনের কামনা করছি বছরের শিক্ষা গ্রহণের পথে এডওয়ার্ড আরও সমৃদ্ধ হবে, পরিশিলীত হবে আরও পরিণত হবে আর আমরা তার আঁকা ছবিতে পাব অনেক নান্দনিক প্রকাশ

অভিনন্দন; শিল্পী এডওয়ার্ডকে

 লেখক: চলচ্চিত্র পরিচালক

চিত্রপ্রদর্শনীর কিছু ছবি: