কাশ্মীরে হিন্দু তীর্থযাত্রীদের উপর হামলায় নিহত সাত

ভারত শাসিত কাশ্মীরে জঙ্গিদের হামলায় সাতজন হিন্দু তীর্থযাত্রী নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ছয়জন নারী।

কাশ্মীরের অনন্তনাগ জেলার অমরনাথ তীর্থকেন্দ্র থেকে তীর্থ যাত্রীবাহী বাসটি যখন ফিরছিল তখন সেটির উপর জঙ্গি হামলা হয়। এ হামলায় আরো ১৯ তীর্থযাত্রী আহত হয়েছে।

অনন্তনাগ পুলিশ লাইন থেকে বিবিসির জুবায়ের আহমেদ জানাচ্ছেন, হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া তীর্থ যাত্রীরা বলছেন তারা সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে আছেন। সেখানকার হাসপাতাল এখন আহতদের ভিড়ে পরিপূর্ণ।

বাসের মালিক হর্ষ দেশাই , ” আমি বাসের সামনে পাঁচ-ছয়জন বন্দুকধারীকে দেখেছি। তারা নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে এবং বাস লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়েছে। আমি বাসের চালককে বলেছি না থামাতে এবং চালিয়ে যেতে।”

সেসব যাত্রী বেঁচে আছেন তারা বাস চালকের সাহসিকতার প্রশংসা করেছে। শেষ পর্যন্ত বাসটি দুই কিলোমিটার দূরে একটি সেনা টহল দলের সামনে গিয়ে থামে।

যাত্রীরা বলছেন, বাস চালক যদি সাহসিকতার সাথে চালিয়ে না যেতেন তাহলে মৃতের সংখ্যা আরো বেশি হতো।

এ হামলার পর ভারতের বিভিন্ন জায়গায় তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এলাকা গুজরাটে অনেকে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে বলেছেন, এ হামলার শক্ত জবাব দেয়া উচিত।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রে মোদী এক টুইট বার্তায় বলেছেন, এ হামলায় তিনি দারুণ মর্মাহত এবং ভারত কখনো এ ধরনের হামলার কাছে নত হবে না। (বিবিসি)