মেট্রো ওয়াশিংটন এলাকায় ইষ্টার সানডে উদযাপন

সুবীর কাস্মীর পেরেরা, ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্র:

১৬ এপ্রিল মেরিল্যান্ডের সিলভার স্প্রিং শহরের একটি অডিটোরিয়ামে ইষ্টার সানডে উদযাপন করা হয়। বাংলাদেশ খ্রীষ্টান এসোসিয়েশন এর প্রেসিডেন্ট মাইকেল খোকন রোজারিও এর শুভেচ্ছা বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠান আরম্ভ হয়। শুরুতে বাংলাদেশ-আমেরিকার জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়। মারিও মন্ডলের উপস্থাপনায় মঞ্চে আসেন ডা. পেট্রিশিয়া শুক্লা গোমেজ। তিনি অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বের উপস্থাপন জিনিয়া গনছালভেস ও এরিক নিক্সন মন্ডলের হাতে মাইক তুলে দেন।

‘কবর ছেড়ে উঠেছ তুমি’ গানটি পরিবেশন করেন বিসিএ এর নিয়মিত শিল্পীগণ। পরিবেশনায়, মুক্তা, সবিতা,রুবি,ডলি,আইরিন,রত্না,শুক্লা, সান্তনা, অলকা, ইভা ও ডেনিস রোজারিও। তবলায় সঙ্গত করেন সুকুমার পিউরিফিকেশন। একই শিল্পীবৃন্দ পরিবেশন করেন দেশের গান ‘যে মাটির বুকে ঘুমিয়ে আছে।’ তবলায় ছিলেন, ড পল ফেবিয়ান গোমেজ।

মুক্তা মেবেল রোজারিও এর পরিচালনায় ছোট শিশু মেঘা, রেইন্, ত্রপা, এডেন, অনন্ত ও রায়েন পরিবেশন করে দেশের গান, ‘কেউবা বলে ধানের দেশ ‘ গানটি।

এঞ্জেলিনা কোড়ইয়া ও এরিকা কোড়ইয়া পরিবেশন করে, ‘বুল্বুল পাখি ময়না টিয়ে গানটি।

সিনথিয়া গোমেজ এর কোরিওগ্রাফিতে নৃত্য পরিবেশন করে, সিনথিয়া ,শ্রুতি,লরেন,মন,রেহা,পিওনা,অর্চি, হোলি,রিয়া,শ্রেয়া,রিচেল,মাতৃ ও দেবিকা।

শিল্পী গ্লোরিয়া রোজারিও এর কোরিওগ্রাফিতে একক মনিপুরী  নৃত্য পরিবেশন করে, পিটার পালমা।

‘ও পৃথিবী এইবার এসে’ গানের সাথে নৃত্য পরিবেশন করে জয়িতা ও জেরিন।

সৃষ্টি নৃত্যাঙ্গনের রোজমেরি মিতু গনছালভেস এর  কোরিওগ্রাফিতে নৃত্য পরিবেশন করে মেঘা ও এঞ্জেলিনা কোরাইয়া।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে ফাদার শীতল হিউবার্ট রোজারিও, সিএসসি উপস্থিত শিশুদের মাঝে ইষ্টার এগ বিতরণ করেন।

মঞ্জুরি নৃত্যালয়ের শ্যারোল, রীতি, মনীষা,স্যান্ড্রা ও পিতার নৃত্য পরিবেশন করে।  কোরিওগ্রাফিতে ছিলেন, শিল্পী গ্লোরিয়া রোজারিও।

কৌতুক পরিবেশনায় ছিলেন, সুকুমার, বিভাষ, নিক্সন ও সুমিত।

গ্রেসি মন্ডলের পরিচালনা ও কোরিওগ্রাফিতে ‘আনন্দ বিচিত্র’ পরিবেশন করেন, ফিওনা,ফারেন,ইলিনিয়া,জোসেফ,ইভান্স,এরিনা,জন,মে,রায়েন,আরিয়ান, নরেন,অমিত,জেনি, ঝুমা,ডমিনিক, তাপসি, রেশমা,রাখি ও গ্রেসি মন্ডল।

রিচার্ড পিয়াল রোজারিও গিটারে দুটি সঙ্গীত পরিবেশন করেন।

ঐশী মুর্মু, পরিবেশন করেন, ‘আকাশ মেঘে ঢাকা ‘ গানটি।

প্রিয়াংকা ও মারিও নৃত্যের তালে সবাইকে মাতিয়ে রাখেন।

শিউলি গোমেজের পরিচালনায় ইস্টারের বিশেষ নাটিকা ‘আমি তারে দেখিনি ‘ মঞ্চায়ন করেন, শিউলি, সোমা,আইরিন,রত্না,সান্তনা,শুভ্র, অনন্ত,লিপি,সৈকত ও ডেনিস ডমিনিক।

রাতের খাবার শেষে বিসিএ এর ট্রেজারার শ্যামল ডি’কস্তার উপস্থাপনা ও পরিচালনায় লটারি পর্বে গ্র্যান্ড স্পনসর শরীফ আহমেদ ও আলবার্ট গোমেজ এর মা লটারি বিজয়ীদের মাঝে প্রথম পুরস্কার তুলে দেন। এছাড়া অন্যান্য পুরস্কার বিরতণ করেন বিসিএ এর প্রেসিডেন্ট মাইকেল খোকন রোজারিও ও ফাদার শীতল হিউবার্ট রোজারিও, সিএসসি।

শেষে ডলি রড্রিক্স এর ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠান সমাপ্ত করা হয়।

অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন, ডা পেট্রিসিয়া শুক্লা গোমেজ।

একই দিনে সেন্ট ক্যামিলাস গির্জার ক্যামিলা অডিটোরিয়ামে বাঙালি-আমেরিকান খ্রিষ্টান এসোসিয়েশন ইষ্টার অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। গান,নাচ,নাটিকা, কৌতুক অভিনয় করেন সংগঠনের সদস্য/সদস্যবৃন্দ। এছাড়া ছিল লটারি পর্ব ও ইষ্টারের বিশেষ খাবার।

অন্য একটি সংগঠন ‘ইছামতি’ স্থানীয় একটি স্কুল অডিটোরিয়ামে ইষ্টারের বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। গান,নাচ,নাটিকা, কৌতুক অভিনয় করেন সংগঠনের সদস্য/সদস্যবৃন্দ। এছাড়া ছিল লটারি পর্ব ও ইষ্টারের বিশেষ খাবার।

ইষ্টারের দিন সকালে সেন্ট ক্যামিলাস গির্জার সেন্ট ক্যামিলা হলে মেট্রো ওয়াশিংটন এলাকার বসবাসরত খ্রিষ্টানদের জন্য বিশেষ বাংলা খ্রীষ্টযাগ অর্পণ করেন ফাদার শীতল হিউবার্ট রোজারিও, সিএসসি। খ্রীষ্টযাগে প্রায় ছয় শতাধিক  খ্রীষ্টভক্ত অংশগ্রহণ করেন।